ব্লগিং

‘ব্লগ’ শব্দটার সাথে প্রায় সবাই পরিচিত। ব্লগ শব্দটি এসেছে ‘Weblog’ শব্দ থেকে। ব্লগ মূলত ব্যক্তি কেন্দ্রিক পত্রিকা। যারা ব্লগ লিখেন তাদেরকে ব্লগার বলা হয়। অনেক ব্লগিং প্লাটফর্ম আছে যেখানে ব্লগাররা প্রতিনিয়ত ব্লগ লেখা ছাপায় বা পোস্ট করে। ব্যবহারকারীরা ঐসব ব্লগে মন্তব্যও করতে পারে।

ব্লগের মাধ্যমে ব্লগাররা তাদের নিজস্ব মতামত, চিন্তাধারা, দৃষ্টিভঙ্গি তুলে ধরেন। ব্লগ সাধারণত কোনো নির্দিষ্ট বিষয়ের উপর লেখা হয়। ব্লগের মধ্যে ছবি, লেখা, অডিও, ভিডিও থাকতে পারে। তবে বেশিরভাগ ব্লগই লেখা ভিত্তিক হয়। সাম্প্রতিক কালে ব্লগ ফ্রিল্যান্স সাংবাদিকতার একটি মাধ্যম হয়ে উঠেছে। ব্লগের মাধ্যমে ব্লগাররা তাদের ভাবনাগুলো সহজেই জনসাধারণের কাছে পৌছে দিতে পারে।

বিভিন্ন ধরনের ব্লগ হতে পারে। যেমন: আর্ট ব্লগ, ফটো ব্লগ, ভিডিও ব্লগ, সঙ্গীত ব্লগ, অডিও ব্লগ ইত্যাদি। আরেক ধরনের ব্লগ আছে যার নাম মাইক্রো ব্লগিং। এখানে পোস্টের আকার তুলনামূলক ছোট হয়। Justin Hall ১৯৯৪ সালে ব্যক্তিগত ব্লগিং শুরু করেন। তাকে ব্লগিং ইতিহাসে সবচেয়ে পুরানো ব্লগার ধরা হয়। সে সময়কার চলমান কিছু জনপ্রিয় ব্লগ হচ্ছে ‘Jerry Pournelle’ এবং ‘Dave Winer’s’ এর পার্সোনাল ব্লগ। ১৯৯৯ সালে থেকে ব্লগিং এর জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি পায়। ১৯৯৮ সালে ব্রুস এবলসন নামে এক ব্যক্তি ‘ওপেন ডায়েরি’ নামক একটি ব্লগ খুলেন, যা রাতারাতি বিশাল জনপ্রিয়তা পায় এবং হাজার হাজার ব্লগার তার সাথে যুক্ত হয়ে যায়। ব্লগিং এর জনপ্রিয়তার সাথে চাহিদাও ধীরে ধীরে বাড়তে থাকে।

সময়ের সাথে সাথে ব্লগিং এর সাথেও নানা প্রযুক্তি যুক্ত হতে থাকে। বিভিন্ন ওয়েবসাইটে ব্লগাররা সহজেই ব্লগিং এর সুযোগ পাচ্ছে। পারস্পরিক মত বিনিময় এবং চিন্তাধারা তুলে ধরার জন্য বর্তমান প্রজন্মের অনেকেই ব্লগিং বেছে নিচ্ছে। বর্তমানে বিশ্বব্যাপী কিছু জনপ্রিয় ব্লগিং প্লাটফর্মের মধ্যে রয়েছে গুগল ব্লগার, ওয়ার্ডপ্রেস। বর্তমান প্রজন্ম প্রিন্ট মিডিয়ার উপর নির্ভরশীল নয়। তারা বিভিন্ন ব্লগিং এর মাধ্যমে নিজের মুক্ত চিন্তার বিকাশ ঘটাতে পারে। ফলে তাদের উন্নত মানসিকতার প্রসার ঘটে। নিজের চিন্তাধারার প্রসার এবং তা জনসাধারণের কাছে পৌছে দেওয়ার জন্য ব্লগিং অত্যন্ত জনপ্রিয় একটি মাধ্যম।

তথ্যসূত্র: Wikipedia

1 thought on “ব্লগিং”

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top