Leadership

আমরা সবাই নেতা বা লিডার হতে চাই। অনেকে কোনো জায়গায় নেতৃত্বে আছি আবার অনেকের মনে হতে পারে আমি কোথাও এরকম অবস্থানে নেই কিন্তু মজার ব্যাপার হচ্ছে আমরা সবাই কিন্তু এক একজন নেতা বা লিডার, যিনি দেশ পরিচালনা করেন তিনি কিংবা কোনো আন্দোলনের সম্মুখে ছিলেন তিনিই শুধুমাত্র নেতা এমনটা না। যেমন আপনার নিজেকে প্রতিদিনই নেতৃত্ব দিতে হচ্ছে আবার যখন আপনার পরিবারের হাল ধরবেন বা মা-বাবা হবেন তখনও আপনি একজন লিডার হয়ে যাবেন।

 

নেতৃত্ব যেহেতু একটি তত্ত্ব তাই এই নিয়ে মতামতের সাথে সবার একমত না হতে পারাটাই স্বাভাবিক। আবার সবার নেতৃত্বের সাইকোলজি একরকমও হয়না, একেকজন এক এক ভাবে নেতৃত্ব দিয়ে নিজের দলকে এগিয়ে নিতে পছন্দ করেন। কিন্তু একটা জায়গায় নেতাদের কিছু মিল থেকে যায় বা সবার কিছু দিক অবশ্যই অনুসরণ করতে হয়। 

 

আমি ব্যক্তিগতভাবে একটি কথা সবসময় মনে রাখার চেষ্টা করি যে, Be a Leader not a Boss। মূলত এই ধারণাটার সাথে অনেকে একটু ভেবেচিন্তে দেখতে পারবেন। বিশেষ করে যারা কর্পোরেট লাইফের একটু হলেও স্বাদ পেয়েছেন কিংবা অনেকজন নেতার অধীনে কাজ করেছেন তারা এ ব্যাপারটা একটু হলেও আঁচ করতে পেরেছেন। কাউকে ছোট করার জন্য বলছিনা, আবার সবাই একরকমও না, আমরা অনেকেই মনে করি যে; “আমি এখানে নেতৃত্বে আছি তার মানে আমি যা বলবো তাই ঠিক, আমার উপরে কেউ কিছু বলতে পারবেনা, আমি কারো কাছে জবাবদিহি করবোনা, আমি যা বলবো তাই ঠিক আর আমার যুক্তিহীন সিদ্ধান্ত হলেও তা মেনে নিতে হবে সবার, কোনো কাজে সফল হলে কৃতিত্ব আমার আর ব্যর্থ হলে দায়ভার আমি বাদে সবার।”  আর এখানেই আমরা মূলত নেতৃত্ব দিতে ভুলটা করে থাকি। আমার কাছে মনে হয় মূলত এটা Boss দের মনোভাব। 

 

আমার কাছে নেতা বা লিডার তিনিই যিনি সকল কিছুতে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিবেন। নেতাদের শোনার ও পর্যবেক্ষণ করার ক্ষমতা, সব স্তরের সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষেত্রে আলোচনা শুরু করায় উৎসাহদানের জন্য নিজেদের দক্ষতাকে কাজে লাগানোর ক্ষমতা, সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষেত্রে সঠিক প্রক্রিয়া ও স্বচ্ছতাকে প্রতিষ্ঠিত করার ক্ষমতা, জোর করে চাপিয়ে না দিয়ে নিজেদের মূল্যবোধ ও দূরদর্শিতাকে স্পষ্টভাবে প্রকাশ করার ক্ষমতা ইত্যাদি দক্ষতা বা ক্ষমতা অর্জন এবং তা চর্চা করে যেতে হয়। নেতৃত্ব মানে শুধুই সভায় আলোচ্য বিষয়সূচির প্রতি প্রতিক্রিয়া দেখানো নয়, নিজে সেই কর্মসূচি স্থির করা, সমস্যা চিহ্নিত করা এবং শুধুই পরিবর্তনের সঙ্গে সামাল দিয়ে না চলে নিজেই এমন পরিবর্তনের সূচনা করা যা উল্লেখযোগ্য উন্নতির পথ প্রশস্ত করে। আর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় তিনি কখনো জবাবদিহি করতে ভয় পান না কিংবা তার কোনো অহংকার থাকেনা। দলের ব্যর্থতার দায়ভার যেমন তিনি মাথা পেতে নিতে পারেন তেমনি তিনি সফলতার কৃতিত্ব পুরো দলকে দিতে দ্বীতিয়বার ভাবেন না। আর এখানেই Leader এবং Boss দের পার্থক্য থাকে।

 

নেতারা কখনো নেতৃত্ব হারানোর ভয়ে থাকেন না, কেননা তিনি যদি তার যোগ্যতা বা গ্রহণযোগ্যতা ধরে রাখতে পারেন তাহলে তার নেতৃত্বের জায়গাটা কখনো অন্যকেউ এসে দখন করতে পারবেনা। আর নেতাদের ভয়ই বা থাকবে কেনো ! কেনোনা একজন নেতা বা লিডার ক্ষমতা রাখেন হাজার হাজার নেতৃত্ব দেওয়ার মতো মানবসম্পদ গড়ে তোলার। আর নেতার সফলতা তখনই যখন তিনি তার অধীনস্তদের মধ্যে সমস্যা সমাধানের ক্ষমতা, সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতা,শক্ত যোগাযোগ ক্ষমতা ইত্যাদির বীজ রোপন করে দিতে পারবেন। 

 

আসলে নেতৃত্ব নিয়ে কথা বলতে গেলে অনেক কিছু চলে আসে যেটা হয়তোবা এই লিমিটেশানের মধ্যে বলা সম্ভব না। তাও শেষটা এভাবে করি, সবাই একজন যোগ্য বা অনুসরণীয় নেতা হওয়ার জন্য সাধনা করে যান। যেনো আজ আপনি যদি কাউকে আপনার আইডল মনে করে থাকেন, ১০ বছর পর যদি কেউ আপনাকে জিজ্ঞেস করে যে, আপনার নেতৃত্ব গুণ অর্জনের আইডল কে? তখন আপনি যেনো বলতে পারেন আমার আইডল আমি নিজেই। 

 

যদিও শেখার বাকি অনেক কিছু তাও আপনাদের  যদি  প্রশ্ন জাগে নেতৃত্বে আমার আইডল কে? আমি বলবো দশ বছর পরের আমি :p। 

1 thought on “Leadership”

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top