স্মৃতিশক্তি বাড়ার 09টি কার্যকরী টিপস !!

সকালে কি দিয়ে নাস্তা করেছি ? বাসা থেকে বের হয়েছি দরজাটা বন্ধ করছি কিনা ? পরেরদিন কোথায় কোন প্রোগ্রাম আছে ? ফ্যানের সুইচ কি অন করা ?

অনেকেও মনে করার চেষ্টা করে মনে করতে পারতেছেন না।
তো ,এই লেখাটি আপনার জন্য !!

উপরের এরকম যদি কিছু হয়,তাহলে মনে করবেন আপনার ভুলে যাওয়ার প্রবণতা আছে। ভুলে যাবার প্রবণতা কি আপনার একার ?
না! ভুলে যাওয়ার প্রবণতা সবারই আছে।এটা স্বাভাবিক। খাদ্যাভ্যাস, বয়সের তারতম্য সহ ইত্যাদি নানা বিষয়ের কারণে স্মৃতিশক্তি লোপ পায়। শিক্ষার্থীরাও অনেকে এ সমস্যায় ভোগে। মানসিক চাপ, বিষণ্নতা বা উদ্বেগজনিত রোগ থাকলে এটি দেখা যায়। অনেক সময় আমাদের ঘুমের ব্যাঘাত হলেও এটি দেখা যায়। তাছাড়া সব সময় এক চিন্তা নিয়ে থাকলেও এটি দেখা যেতে পারে। স্মৃতিশক্তি লোপ পাওয়ার কিছু কারণও আছে। এগুলো হলো চিন্তা,অতিরিক্ত ধূমপান, মানসিক চাপ ,উদ্বেগজনিত রোগ। বয়স বেশি হওয়ার সাথে সাথে এটি দেখা যায়।

তাহলে এখন প্রশ্ন হল, এটি থেকে কি পরিত্রান পাওয়া যাবে ?
হ্যাঁ ! যাবে । তো চলো জেনে নেই ,স্মৃতিশক্তি বাড়ার 9টি কার্যকারী টিপস !

01. প্রতিদিনের খাবার তালিকায় মস্তিষ্কের খাবার রাখুন।
আমাদের দেহের চালক মস্তিষ্ক। মস্তিষ্ক আমাদের পুরো দেহ কে নিয়ন্ত্রণ করে। মস্তিষ্ককে তাজা রাখতে গ্রিন টি খেতে পারেন। তাছাড়া খাদ্যতালিকায় শাকসবজি রাখতে হবে। ব্লুবেরি প্রকৃতির অন্যতম সেরা উপাদান। এক গবেষণায় দেখা গেছে, কোন ব্যক্তি যদি নিয়মিত 12 সপ্তাহ ব্লুবেরি জুস পান করে তাহলে তার স্মৃতিশক্তি পূর্বের থেকে বৃদ্ধি পায়। ভিটামিন সি সমৃদ্ধ খাবার খান আপনার স্মৃতিশক্তি এবং চিন্তা শক্তি বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে। তাছাড়া স্মৃতিশক্তি বাড়াতে মসুর ডাল খেতে পারেন। মসুর ডাল মস্তিষ্কের কর্মদক্ষতা বৃদ্ধি করে ।চিনি, কার্বোহাইড্রেট ,অতিরিক্ত কোলেস্টেরলযুক্ত খাবার এড়িয়ে যাবেন।

02. ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখুন ।
স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধি করতে ওজন নিয়ন্ত্রণের ভূমিকা অপরিসীম। দিন দিন যদি আপনার ওজন বৃদ্ধি পেতে থাকে, তাহলে নিয়মিত ব্যায়াম করুন। একজন মোটা মানুষ সব সময় অস্বস্তি অনুভব করে। সব সময় অস্বস্তি অনুভব করাটাও কিন্তু স্মৃতিশক্তি লোপ পাওয়ার একটা কারণ। ওজন নিয়ন্ত্রণে থাকলে আপনি সবসময় কর্মক্ষম থাকবেন। এবং আপনার স্মৃতিশক্তি পূর্বের থেকেও বৃদ্ধি পাবে।

03. পর্যাপ্ত ঘুম ।
স্মৃতিশক্তি বাড়াতে পর্যাপ্ত ঘুমের কোনো বিকল্প নেই। মানুষ যখন ঘুমায় তখন তার মস্তিষ্কে হিপোক্যাম্পাস অংশে নতুন নিউরন কোষ জন্মায়। যার ফলে আমাদের স্মৃতি শক্তি পূর্বের থেকে অনেক বৃদ্ধি পায়। তাই প্রতিদিন অন্তত 7 ঘণ্টা ঘুমান। আপনার যদি কোন একদিন ঘুম কম হয় তাহলে পরের দিনের অস্বস্তিটা খুব যন্ত্রণাদায়ক হয়। আর এটাও কিন্তু স্মৃতিশক্তি লোপ পাওয়ার একটা কারণ। স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধি করতে পর্যাপ্ত ঘুমান।
একটা কথা আছে না,’ early to bed and early to rise ‘
তাই স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধি করতে এ কথাটি মেনে চলুন

04. খেলাধুলা করুন।
স্মৃতিশক্তি বাড়াতে খেলাধুলারও কোন বিকল্প নেই। সারাদিনের অবসর সময়ে আপনি খেলতে বের হন। নিয়মিত খেলাধুলা করলে বিষণ্নতা ও উদ্বেগজনিত রোগ দূর হয়ে যায়। তাছাড়া নিয়মিত ব্যায়াম করুন। নিয়মিত খেলাধূলা ও ব্যায়াম না করলে আমাদের শরীরে বিভিন্ন রোগ বাসা বাঁধে। শরীরে রোগ জীবাণু থাকলে স্মৃতিশক্তি লোপ পায়। এই রোগ-জীবাণু স্মৃতিশক্তি থাকে আস্তে আস্তে খেয়ে ফেলে।প্রতিদিন সকালে হাঁটতে বের হন। সকালের মুক্ত বাতাস ও স্তব্ধ প্রকৃতি আপনাকে সতেজ অক্সিজেন দিবে। ব্যায়াম এর ফলে মস্তিষ্কে বেশি হারে অক্সিজেন ও গ্লুকোজ সরবরাহ হয়।স্মৃতিশক্তি বাড়াতে খেলাধুলা ও ব্যায়াম করাটাও অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ

05. চিন্তা মুক্ত থাকুন ।
স্মৃতিশক্তি লোপ পাওয়ার একটি অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ কারণ হলো চিন্তা করা। আপনি যদি এই মানসিক চাপে থাকেন তাহলে আপনার স্মৃতিশক্তি অনেক লোপ পাবে। চিন্তামুক্ত থাকলে পূর্বের সকল জিনিস আপনার মনে থাকবে। আপনি যদি সবসময় চিন্তায় থাকেন তাহলে আপনি সেটা নিয়েই থাকবেন এবং আপনার স্মৃতিশক্তি কোন কাজ করবে না । যারা আপনাকে মানসিক চাপ দেয় তাদের সঙ্গ একবারেই পরিত্যাগ করুন ।তাই স্মৃতিশক্তি বাড়াতে সব সময় চিন্তা মুক্ত থাকুন।

06. সব সময় হাসি খুশি থাকুন ।
পরিবারের লোকদেরকে পর্যাপ্ত সময় দিন। আপনি যদি সব সময় মনমরা হয়ে থাকেন তাহলে আপনার শরীরে উদ্বেগজনিত রোগ বাসা বাঁধবে ।অনেকে মানসিক সমস্যায়ও ভোগে।আপনি যদি সব সময় হাসি খুশি থাকেন তাহলে আপনার স্মৃতিশক্তি দ্বিগুণ কাজ করবে। তাই স্মৃতিশক্তি বাড়াতে সবসময় হাসিখুশি থাকুন এবং পরিবারের লোকজনদের পর্যাপ্ত সময় দিন

07. অনুভূতি প্রকাশ করুন ।
হাসি-কান্না, রাগ, বিরক্তি, সবকিছু প্রকাশ করুন। কোনকিছু চেপে ধরে রাখবেন না। বই পড়া, ছবি আঁকা ,খেলাধুলা করা ইত্যাদি করতে পারেন। তাছাড়া দাবা খেলা এবং সুডেকুও খেলতে পারেন। এতে আপনার মস্তিষ্কের চিন্তা করার ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়। এমন কিছু যেটা আপনাকে উন্নত করবে এবং আপনি সেটা উপভোগ করবেন সেটা চেপে না রেখে প্রকাশ করুন। তাছাড়া মস্তিষ্ককে কোন কাজে লাগান। মস্তিষ্ক যদি অলস পড়ে থাকে তাহলে সেটা আস্তে আস্তে মরিচা ধরার মত হয়ে যাবে। তাই স্মৃতিশক্তি বাড়াতে কোনকিছু চেপে না রেখে নিজের অনুভূতি প্রকাশ করুন

08. ধূমপান ত্যাগ করুন ।
যারা ধূমপায়ী তারা বিভিন্ন রোগে ভুগে। ধূমপায়ীরা সব সময় মানসিক চাপে থাকেন। ধূমপানের ফলে আমাদের ফুসফুস মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। একজন ধূমপায়ী ব্যক্তির স্মৃতি শক্তি খুবই কম। ধূমপান হলো মরণব্যাধি। এটি কেবল স্মৃতিশক্তি কমাতে নয় বরং সকল রোগ বৃদ্ধি পেতে সাহায্য করে। ধূমপান আজি পরিত্যাগ করুন

09. কোন বিষয় জানতে হলে তার বিস্তারিত জানুন ।
আপনাকে যদি কোন বিষয় জানতে দেয়া হয় তাহলে সে বিষয়টির একদম খুঁটিনাটি থেকে শুরু করে সবকিছুই জানুন। আপনার কোন বিষয় মনে রাখতে হলে সে বিষয়টির চিত্র, বর্ণনা ,কাজ ইত্যাদি মাথায় রাখবেন। ফলে বিষয়টি আপনার মাথায় দীর্ঘস্থায়ী হবে

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top